বিমান ভ্রমণে নতুন হলে প্রথমে আপনাকে যা জানতে হবে

অনলাইন ডেস্ক
প্রকাশিত: ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ , ০৬:৪২ পিএম
বিমান ভ্রমণে নতুন হলে প্রথমে আপনাকে যা জানতে হবে

বিমান ভ্রমণে নতুন হলে প্রথমে আপনাকে জানতে হবে চেকইন কি? চেকইন হচ্ছে এমন একটি প্রক্রিয়া যার মাধ্যমে একজন যাত্রী নির্দিষ্ট কোন ফ্লাইটে ভ্রমণের জন্য তার উপস্থিতি নিশ্চিত করে থাকেন। অনেক বিমান সংস্থা এই চেকইন প্রক্রিয়ার সময় যাত্রীদের আরও কিছু ব্যাপার নিশ্চিত করিয়ে থাকেন। যেমন- যাত্রী কি খাবেন, যাত্রীর সাথে ব্যাগেজের পরিমাণ কি, যাত্রী কোন সিটে বসতে ইচ্ছুক ইত্যাদি।

আপনি ব্যবসার জন্য ভ্রমণ করুন কিংবা বিনোদনের জন্য- বিমানবন্দরে লাইনে অপেক্ষা করার থেকে অনলাইনে চেকইন আপনার অনেকটা সময় বাঁচিয়ে দেবে। এই ব্যাপারটা চিরন্তন সত্য যে, বিমানবন্দরে ফ্লাইট চেকইন করতে বেশ বেগ পেতে হয়। চেকইন-এ সবসময় বিশাল লাইন থাকে। আপনি যদি ফ্লাইট ধরতে বাসা থেকে ৩ ঘণ্টা আগে বের হতে না চান তাহলে চেকইনটা অনলাইনে সেরে ফেলুন। অনলাইনে চেকইন করতে সর্বোচ্চ ১০ মিনিট সময় লাগতে পারে।

অনলাইনে চেকইন কোথায় করবেন?
বেশির ভাগ বিমান সংস্থার ওয়েবসাইটের মেনুতেই আপনি ‘Web Check In’ অথবা ‘Check In’ নামের ট্যাব পাবেন। ট্যাব খুঁজে না পেলে বিমান সংস্থার ওয়েবসাইটে আপনার একাউন্টে লগইন করুন এবং আপনার বুকিং ডিটেইলসে প্রবেশ করুন। এখানে অবশ্যই আপনি অনলাইন চেকইন অপশন পাবেন।

ফ্লাইটের কতক্ষণ আগে চেকইন করতে পারবেন?
সাধারণত আপনার ভ্রমণ শুরুর ২৪ থেকে ৪৮ ঘণ্টা আগে ওয়েবসাইটে চেকইন অপশন চলে আসে। ভিন্ন ভিন্ন বিমান সংস্থার চেকইন সময় ভিন্ন ভিন্ন হতে পারে। তাই নিশ্চিত ভাবে জানতে আপনার বিমান সংস্থার ওয়েবসাইটে থাকা চেকইন নির্দেশিকা পড়ে দেখুন।

কি কি লাগবে?
অনলাইনে চেকইন করতে আপনি কোন শহর থেকে কোন শহরে যাচ্ছেন সেটা উল্লেখ করতে হবে। আপনার ইমেইল আইডি ও বুকিং আইডি উল্লেখ করতে হবে। সাধারণত বুকিং কনফার্মেশন মেইলের মধ্যে বুকিং আইডি উল্লেখ করা থাকে। আপনি যদি বুকিং কনফার্মেশন মেইল না পেয়ে থাকেন বা হারিয়ে গিয়ে থাকে তবে এয়ারলাইন্সের গ্রাহকসেবা নাম্বারে ফোন করুন।

অনলাইন চেকইন কেন করবেন?
অনলাইনে চেকইন করার সাথে সাথে আপনি ডমেস্টিক যাত্রী হলে এয়ারলাইন্সের ওয়েবসাইট আপনাকে একটি ই-বোর্ডিং পাস দিয়ে দেবে। আন্তর্জাতিক যাত্রী হলে আপনাকে একটি কনফার্মেশন স্লিপ দেয়া হবে। যেটির বিনিময়ে বিমানবন্দর থেকে আপনি বোর্ডিং পাস পেয়ে যাবেন। প্রিন্ট করা ই-বোর্ডিং পাসের মাধ্যমে আপনি বিমানবন্দরের লম্বা লাইনে দাড়িয়ে থাকার যন্ত্রণা থেকে মুক্তি পাবেন। আধুনিক এয়ারলাইন্স গুলো অনলাইনে চেকইন করলে অনলাইনেই আপনাকে সিট পছন্দ করার ও খাবার পছন্দ করার অপশনও দিয়ে দেবে।

বোর্ডিং পাস প্রিন্ট করতে ভুলে গেলে কি হবে?
আপনি যদি আপনার বোর্ডিং পাস প্রিন্ট করতে ভুলে গিয়ে থাকেন তবে ঘাবড়াবার কিছু নেই। আধুনিক বিমানবন্দর গুলোতে কিয়স্ক নামের একটি মেশিন থাকে যেটি থেকে আপনি বোর্ডিং পাস প্রিন্ট করে নিতে পারবেন। যদি সেটিও সম্ভব না হয় তবে এয়ারলাইন্সের কাউন্টারে শুধু আপনার আইডি ও বুকিং কনফার্মেশনটি প্রদর্শন করুন, আপনাকে বোর্ডিং পাস দিয়ে দেয়া হবে। বেশির ভাগ এয়ারলাইন্সে অনলাইন চেকইন করা যাত্রীদের জন্য আলাদা কাউন্টার থাকে যেখানে সাধারণত ছোট লাইন থাকে।

ফ্যামিলি বা গ্রুপ ভ্রমণের ক্ষেত্রে কি অনলাইন চেকইন সম্ভব?
হ্যা, ফ্যামিলি বা গ্রুপ ভ্রমণের ক্ষেত্রেও অনলাইন চেকইন সম্ভব। সাধারণত এয়ারলাইন্স গুলো প্রতি বুকিং-এ ০৯ জন যাত্রী পর্যন্ত অনলাইন চেকইন করার সুযোগ রাখে।

অনলাইনে চেকইন করলে লাগেজের কি হবে?
আপনার সাথে যদি শুধু আপনার ক্যারি-অন (হাতে রাখার ব্যাগ) ব্যাগ থাকে তবে আপনি সরাসরি সিকিউরিটি চেকে চলে যেতে পারেন। তবে যদি আপনার সাথে বাড়তি লাগেজ থাকে তবে আপনাকে এয়ারলাইন্স কাউন্টারে যেতে হবে। বেশির ভাগ এয়ারলাইন্সে অনলাইন চেকইন করা যাত্রীদের জন্য আলাদা ব্যাগেজ ড্রপ কাউন্টার থাকে।

অনলাইনে চেকইন করলে বিমানবন্দরে পৌঁছানো উচিৎ?
যদিও অনালাইনে চেকইন করলে আপনার বোর্ডিং টাইম অনেকটাই কমে আসে তবুও বিমানবন্দরে আগে আগে পৌঁছানোটাই বুদ্ধিমানের কাজ। দেশের ভেতর ভ্রমণের ক্ষেত্রে অন্তত ৪৫ মিনিট ও আন্তর্জাতিক ফ্লাইটের ক্ষেত্রে ৯০ মিনিট আগে বিমানবন্দরে উপস্থিত থাকুন।