যেভাবে হয় ভয়ংকর উল্কাবৃষ্টি

তথ্যপ্রযুক্তি ডেস্ক
প্রকাশিত: ২৮ ডিসেম্বর ২০১৮ , ০৯:৩১ এএম
যেভাবে হয় ভয়ংকর উল্কাবৃষ্টি

১১০ বছর আগে সাইবেরিয়ার তুঙ্গুস্কা এলাকায় আঘাত হানার ঘটনার মতো আরও একটি ভয়াবহ উল্কাবৃষ্টির আশঙ্কার কথা জানিয়েছেন বিজ্ঞানীরা।

যুক্তরাষ্ট্রের লস অ্যালামস ন্যাশনাল ল্যাবরেটরির পদার্থবিজ্ঞানী মার্ক বসলাফ ও অন্টারিওর ওয়েস্টার্ন ইউনিভার্সিটি অব লন্ডনের পদার্থবিদ পিটার ব্রাউন এ আশঙ্কার কথা জানিয়েছেন।

তাদের বক্তব্য, আগামী জুনে একটি দৈত্যাকার অ্যাস্টারয়েড বা গ্রহাণু পৃথিবীর বায়ুমণ্ডলে ঢুকে পড়বে। তার পর বায়ুমণ্ডলের সঙ্গে সংঘর্ষে তা ভয়ংকর শব্দে বিস্ফোরণ হবে। তখন সৃষ্টি হবে ভয়ংকর উল্কাবৃষ্টি। গবেষণাপত্রটি এই মাসে ওয়াশিংটনে আমেরিকান জিওফিজিক্যাল ইউনিয়নের বৈঠকে পেশ করা হয়েছে।
১৯০৮ সালের ৩০ জুন সাইবেরিয়ার তুঙ্গুস্কার আকাশে আচমকাই একটি দৈত্যাকার মহাজাগতিক বস্তুর বিস্ফোরণ ঘটেছিল ভয়ংকর শব্দে।

যার ঝলকানিতে পুড়ে ছারখার হয়ে গিয়েছিল ৮০০ বর্গমাইল এলাকার সব গাছপালা। থরথর করে কেঁপে উঠেছিল একটি বিশাল এলাকা। জনবসতিহীন এলাকায় ওই ঘটনায় অবশ্য কোনো প্রাণহানি হয়নি।

কেউ কেউ বলেছিলেন, এটা ‘বিটা টরিড’ উল্কাবৃষ্টি। গবেষকদের ধারণা, আগামী জুনের উল্কাবৃষ্টির মধ্যে যতটা বড়, ১৯৭৫ সালের পর তত বড় কোনো মহাজাগতিক বস্তু পৃথিবীর বায়ুমণ্ডলে প্রবেশ করেনি।