আন্তজনপদ গুণীজন স্বীকৃতি ও সংবর্ধনা পেলেন মিথুন


প্রকাশিত: ০৭ এপ্রিল ২০১৯ , ০৭:৩২ পিএম
আন্তজনপদ গুণীজন স্বীকৃতি ও সংবর্ধনা পেলেন মিথুন

‘আন্তজনপদ গুণীজন স্বীকৃতি ও সংবর্ধনা’ পেলেন লেখক ও সাংবাদিক মিজানুর রহমান মিথুন। তার নিজ জেলা পিরোজপুরের ভান্ডারিয়ার সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠন ‘আলহাজ্ব আজাহার শিকদার মোমোরিয়াল পাবলিক লাইব্রেরি এন্ড মুসলিম কালচারাল সেন্টার’ থেকে তাকে এ গুণীজন স্বীকৃতি ও ও সংবর্ধনা প্রদান করা হয়েছে।

গত ২৫ ফেব্রুয়ারি মিজানুর রহমান মিথুনের গ্রামের বাড়ি পিরোজপুরের ভান্ডারিয়ার ১৩৯নং পশারীবুনিয়া শিকদারহাট সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের বার্ষিক অনুষ্ঠানে এ সম্মাননা প্রদান করা হয়।

‘আন্তজনপদ গুণীজন স্বীকৃতি ও সংবর্ধনা’ প্রাপ্তিতে আনন্দ প্রকাশ করে মিজানুর রহমান মিথুন বলেন, ‘ব্যস্ততার কারণে আমি উক্ত অনুষ্ঠানে উপস্থিত হয়ে সম্মাননা ক্রেস্ট গ্রহণ করতে যেতে পারিনি,-এজন্য মনের ভেতর কিছুটা দুঃখ বোধ আছে। পরে আমাকে ক্রেস্টটি ঢাকায় পাঠিয়ে দেয়া হয়েছে। অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকতে পারলে ভালো লাগতো। সবার সঙ্গে দেখা হত, কথা হতো। এ সম্মাননা প্রাপ্তির আনন্দ অনুষ্ঠানে উপস্থিত সবার সঙ্গে ভাগ করতে পারতাম।’

তিনি আরও বলেন, ‘লেখক’ হিসেবে জন্মভিটার প্রকৃতজনের কাছ থেকে এমন স্বীকৃতি প্রাপ্তি আমার লেখালেখি জীবনের পথপরিক্রমায় আমাকে সীমাহীন তৃপ্তি এনে দিয়েছে। এতে অব্যক্ত খুশিতে আমি অশ্রুসিক্ত হয়েছি। আমি নিজেকে গর্বিত মনে করছি।’

মিজানুর রহমান মিথুন ১৯৯৮ সালের ১৫ আগস্ট জাতীয় শোক দিবস বাংলাদেশ বেতারের জাতীয় কবিতা প্রতিযোগিতায় প্রথম স্থান অর্জন করেন। এরপর থেকেই মূলত লেখালেখির শুরু। বাংলা একাডেমির তরুণ লেখক প্রশিক্ষণ কোর্স ২০১১ সালে তৃতীয় ব্যাচে লেখালেখি প্রশিক্ষণের সুযোগ লাভ করেছিলেন।

তার লেখা প্রথম বই, ‘যে ভূতটা বই পড়তে এসেছিল’র জন্য ছোটদের মেলা পুরস্কার লাভ করেন। তিনি বাংলা একাডেমির একজন সদস্য।

মিজানুর রহমান মিথুন বাংলাদেশ বেতারের একজন তালিকাভুক্ত গীতিকার। তিনি নিয়মিত গানও লিখছেন।

বর্তমানে জাগোনিউজ২৪.কম-এ সহ-সম্পাদক হিসেবে কর্মরত আছেন।